বাড়ি সম্পাদকীয় সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হোক

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হোক

150

পরিবার ও প্রিয়জনের সঙ্গে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন শেষে রাজধানীতে ফিরছেন মানুষজন। এতে রাজধানীর পথে আবারও যেন ফিরতে শুরু করেছে প্রাণ। রেলস্টেশন, বাস ও লঞ্চ টার্মিনালে বাড়ছে ঈদ শেষে ঢাকামুখী কর্মজীবী মানুষদের চাপ। ছুটি শেষে নগরের কর্মব্যস্ত জীবনে যোগ দিতে আবারও রাজধানীতে ফিরছেন তারা।

ঢাকামুখী অনেকেই বলেছেন, ঈদের আগে ঢাকা ছেড়ে বাড়ি যাওয়ার পথে যে পরিমাণ ভোগান্তির মুখে তাদের পড়তে হয়েছিল, ঈদ শেষে ফেরার পথে ততটা কষ্ট সইতে হয়নি। আমরা আশা করি, কোনো ধরনের ভোগান্তি ছাড়াই আবারও কর্মস্থলে ফিরতে পারবেন মানুষজন।

চ্যানেল আইয়ের প্রতিবেদনে জানা গেছে, অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে শনিবার সকালে অনেকগুলো ট্রেনই নির্ধারিত সময়ের পরে এসে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছেছে। এতে ভোগান্তি বেড়েছে যাত্রীদের। আর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালেও বেড়েছে রাজধানীমুখী মানুষের ভিড়। অন্যদিকে বাস ও লঞ্চ টার্মিনালের চেয়ে রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনের কিছুটা ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

ঈদে সাধারণ মানুষের বাড়ি ফেরার সময় তেমন বড় ধরনের দুর্ঘটনার শিকার না হওয়ায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ। তবে দুঃখজনক হলেও ফিরতি যাত্রার শুরুর দিকেই কুমিল্লায় যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে ২ জন নিহত এবং অন্তত ৩৫ যাত্রী আহত হয়েছেন। এছাড়া শনিবার বিকেলে নাটোরের বড়াইগ্রামে যাত্রীবাহী বাস ও লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশুসহ ১২ জন নিহত হয়েছেন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, গত ৪ দিনে অর্ধশতাধিক মানুষ সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন। এমনটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

অবশ্য ঘটনার ভয়াবহতা উপলব্ধি করে ইতোমধ্যে ঈদুল আজহার আগে ও পরে নরসিংদী, নাটোর, ফেনীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে সংগঠিত সড়ক দুর্ঘটনার কারণ তদন্তে দশ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। এজন্য সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ। আমরা আশা করি, সড়ক দুর্ঘটনার কারণ তদন্তের এ উদ্যোগ দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।

আমরা বারবার বলে আসছি, দুর্ঘটনা রোধে সবার সচেতনতা বিশেষ করে চালকদের অবশ্যই সতর্ক হতে হবে। এ বিষয়ে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তেমন কোনো কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে দেখা যায়নি। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হলে সড়ক দুর্ঘটনা অনেকাংশেই কমে আসবে বলে আমরা মনে করি।