বাড়ি নির্বাচন আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বরই- ইসি

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বরই- ইসি

84

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের তারিখ না পেছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান প্রস্তাব নাকচ হয়ে গেল। এদিকে নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে ইসি সচিব বৃহস্পতিবার দুই ধরনের বক্তব্য দিয়েছেন।

একইদিন সকালে চট্টগ্রাম, সিলেট ও বরিশাল বিভাগের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে ভোটের ২ থেকে ৩ দিন বা ৭ থেকে ১০ দিন আগে সেনা মোতায়েনের কথা জানান। কিন্তু বিকালে বলেন, কখন কীভাবে সেনা মোতায়েন করা হবে তা এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। নির্বাচন কমিশনারদের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে জানাতে পারব।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বুধবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা ইসির সঙ্গে বৈঠক করে কয়েকটি দাবির সঙ্গে ভোটের তারিখ তিন সপ্তাহ পেছানোর প্রস্তাব করেছিলেন। এ প্রস্তাবের বিষয়ে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। তারা কমিশনের কাছে দাবি-দাওয়া উপস্থাপন করেছিলেন। আজকে (বৃহস্পতিবার) নির্বাচন কমিশন তাদের দাবিগুলো পর্যালোচনা করেছে। জানুয়ারি মাসে বেশকিছু আইনি ও সাংবিধানিক বিষয় আছে।

পুনর্নির্বাচন ও উপনির্বাচন প্রয়োজন হতে পারে; যার জন্য সময়ের প্রয়োজন হবে। নির্বাচনের অনিয়ম হলে তদন্ত করতে সময় লাগবে। গেজেট প্রকাশ ও নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহণ ইত্যাদি কাজ রয়েছে।

এছাড়া বিশ্ব ইজতেমা জানুয়ারির দ্বিতীয় ও তৃতীয় সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় ৩০ থেকে ৪০ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশগ্রহণ করে থাকেন। লক্ষাধিক আইশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়ে থাকে। সব দিক বিবেচনা করে কমিশনের কাছে নির্বাচনের তারিখ পেছানোর বাস্তবসম্মত মনে হয়নি। নির্বাচন পেছানোর আর কোনো সুযোগ নেই বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ৩০ ডিসেম্বরই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ভোট পেছানো নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও আওয়ামী লীগের দাবির কোনটি অগ্রাধিকার পাচ্ছে- এমন প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, নির্বাচন কমিশন একটা স্বাধীন এবং সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। কমিশন নিজের সিদ্ধান্ত নিজেই গ্রহণ করতে পারে। অন্য কারও সিদ্ধান্ত কখনও গ্রহণ করেনি। তবে স্টেকহোল্ডার হিসেবে রাজনৈতক দলগুলো পরামর্শ দিতে পারে।

৮ নভেম্বর ঘোষিত তফসিলে ২৩ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠানের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছিল। পরে তা পরিবর্তন করে ৩০ ডিসেম্বর করা হয়েছে। বড়দিন থাকায় বিদেশি পর্যবেক্ষকরা ছুটিতে থাকায় অনেকেই ৩০ ডিসেম্বর পর্যবেক্ষণে আসতে পারবেন না- এমন দাবির বিষয়ে ইসি সচিব বলেন, এদেশের ১০ কোটি ৪২ লাখ ভোটারের বিষয়গুলো আমরা বিবেচনা করব। বিদেশি যে কোনো পর্যবেক্ষককে আমরা সব সময় স্বাগত জানাই।

জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে ইসি সচিব বলেন, নির্বাচন কমিশন আগেও বলেছে, ইভিএম ব্যবহার করা হবে স্বল্প পরিসরে এবং শহর এলাকায়। এটা আগেই সিদ্ধান্ত ছিল, এখনও আছে। আর ইভিএম কেন্দ্রে সেনাবাহিনী মোতায়েনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আছে, কিভাবে কতদিন আগে সেনা মোতায়েন হবে। এটা পরবর্তী সময়ে সেনাবাহিনীর সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।