বাড়ি নির্বাচন বৈঠকে শেখ হাসিনা ও বি চৌধুরী

বৈঠকে শেখ হাসিনা ও বি চৌধুরী

177

আসন্ন জাতীয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের হয়ে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিকল্প ধারার সভাপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। মঙ্গলবার রাত সোয়া ৮টার দিকে গণভবনে যান বি চৌধুরী। তিনি সোয়া এক ঘণ্টার মতো ছিলেন সেখানে।

বি চৌধুরীর সঙ্গে ছেলে মাহি বি চৌধুরী ও বিকল্প ধারার মহাসচিব আবদুল মান্নানও ছিলেন। তবে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বি চৌধুরী একাই ছিলেন বলে বিকল্প ধারার যুগ্ম মহাসচিব মাহি জানিয়েছেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে জোটের নানা মেরুকরণের মধ্যে এই বৈঠকে কী নিয়ে আলোচনা হয়েছে, সে বিষয়ে বিকল্প ধারা কিংবা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মাহি সোমবার বলেছিলেন, মহাজোটের সঙ্গে ঐক্য নিয়ে আমাদের আলোচনা চলছে। হ্যাঁ, আমরা নিশ্চয়ই নির্বাচনে জয়ী হবেন, এমন প্রার্থী তালিকা নিয়েই আওয়ামী লীগের সঙ্গে আলোচনা করব।

জিয়াউর রহমান বিএনপি গঠনের সময় এই দলের মহাসচিব ছিলেন আওয়ামী লীগের নেতা কফিল উদ্দিন চৌধুরীর ছেলে ডা. বি চৌধুরী।

২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর রাষ্ট্রপতি হন তিনি। এরপর দলে মতদ্বন্দ্বের কারণে তাকে রাষ্ট্রপতির পদ হারাতে হয়েছিল। পরে তিনি বিকল্পধারা বাংলাদেশ নামে নতুন দল গঠন করেন।

রাজনৈতিক মেরুকরণে বিকল্প ধারার পাল্লা এতদিন বিএনপিমনাদের দিকেই ঝুঁকে ছিল। বিএনপিকে নিয়ে কামাল হোসেনের উদ্যোগে গঠিত জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের প্রক্রিয়ায়ও ছিলেন তিনি।

কিন্তু শেষ মুহূর্তে বি চৌধুরী জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন; এরপর আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট থেকে নির্বাচনের ঘোষণা দেওয়া হয় তার দলের পক্ষ থেকে।

কদিন আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক সভায় বলেছিলেন, মহাজোটের শরিকদের ৬৫ থেকে ৭০টি আসন ছেড়ে দিতে পারেন তারা। সেখানে জোটের যোগ্য প্রার্থী থাকলেও আওয়ামী লীগ তাদের দলের নেতাদের মনোনয়ন দেবে না।

এরপর বিকল্প ধারা নিজেদের ‘উইনেবল ক্যান্ডিডেট’র তালিকা তৈরি করছে বলে দলটির নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়। এরপরই শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে গেলেন বি চৌধুরী।

বিকল্প ধারা ইতোমধ্যে ২৫ জন প্রার্থীর একটি তালিকা তৈরি করেছে বলে খবর পাওয়া যায়।

 বিকল্পধারা ও যুক্তফ্রন্টের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ মঙ্গলবার শুরু করেছেন বি চৌধুরী। মধ্যবাড্ডায় ট্রপিক্যাল মোল্লা টাওয়ারে বিকল্পধারা ও যুক্তফ্রন্টের অস্থায়ী নির্বাচনী কার্যালয়ে চলছে এই সাক্ষাৎকার গ্রহণ পর্ব।

যুক্তফ্রন্ট জানিয়েছে, মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৫৫টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে। তার মধ্য থেকে প্রথম দিনে ২০ জনের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়।

এদিকে বি চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আশা করি নির্বাচন সুন্দর ও সুষ্ঠু হবে। মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। জনগণ নির্বাচন চায়, তারা নির্বাচনমুখী হয়ে গেছে। সেটাকে প্রতিহত বা বাধা দেওয়ার চেষ্টা যদি করে কেউ, সেটা কিন্তু জনবিরোধিতা হবে।

ইসির উদ্দেশে তিনি বলেন, সংবিধানে নির্বাচন কমিশনের যে দায়িত্ব দেওয়া আছে, তা বিশাল। আমরা আশা করব, নির্বাচনের দায়িত্ব সম্পর্কে ইলেকশন কমিশন পুরোপুরিভাবে সচেতন।