বাড়ি বাংলাদেশ সংসদে শপথ নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দে বিএনপি

সংসদে শপথ নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দে বিএনপি

142

গত বছরের ৩০শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিয়ে ৬টি আসনে জয় লাভ করেন। নির্বাচনে বিএনপির ভরাডুবির কারনে হিসাবে উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়ত নেতারা বলেন, এটি প্রহশনের নির্বাচন তাই তারা সংসদে যাবেন না এবং তাদের বিজয়ী ৬ জনের কেউই শপথ নিবেন না বলে মন্তব্য করেন।

কিন্তূ গত ৪ মাসের ব্যবধানে সব কিছুর হিসাব পাল্টে গেছে কারন সংসদে শপথ নিবেন না বললেও বিএনপির বিজয়ী এই জন এখন শপথ নিবেন বলে বলছেন। এই প্রসঙ্গে বিএনপির মহা সচীব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এটি রাজনীতিতে বিএনপির নতুন একটি চমক ও ইউটার্ন। বিএনপির শপথের প্রসঙ্গে রাজনীতিবিদ, রাজনীতি বিশ্লেষকরা বলছেন রাজনীতিতে শেষ বলে কিছু নেই তবে বিএনপির শপথ নিয়ে ৬ জনের জন্ বিএনপির তিন ধরনের সিদ্ধান্ত, অনেকের কাছে চরম আগ্রহের সৃষ্টি করছেন আবার কেউ কেউ এটি অভিনব বলে মন্তব্য করছেন।

সিদ্ধান্ত তিনটি হলো প্রথম শপথ নেওয়া দলীয় সাংসদ জাহিদুর রহমানকে দল থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। চার সাংসদ হারুনুর রশীদ, আমিনুল ইসলাম, উকিল আবদুস সাত্তার ও মোশাররফের জন্য দলীয় সিদ্ধান্ত হলো তাঁরা সংসদে যাবেন। আর দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত শপথ নেবেন না। অর্থাৎ মির্জা ফখরুল সংসদ সদস্য হবেন না।

এর মধ্যে সাংসদ হিসেবে শপথ না নেওয়ায় যে আসন (বগুড়া-৬) থেকে ফখরুল নির্বাচিত হয়েছিলেন, তা শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। অর্থাৎ এই সংসদে ফখরুল আর সাংসদ হিসেবে থাকছেন না।

আবার এদিকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি চিকিৎসক জাফরুল্লাহ চৌধুরী। স্বাধীনতা ৭১ টিভিকে বলেন “আমি সংসদে গিয়ে কথা বলার পক্ষেই ছিলাম। তবে যে পদ্ধতিতে বিএনপি গেল, সেই যাওয়াটা ভুল। সিদ্ধান্ত সঠিক কিন্তু পথটা ভুল। বিএনপির স্থায়ী কমিটি এবং সবাইকে জানিয়েই করতে পারত।’ তিনি মনে করেন, একটাই সিদ্ধান্ত হওয়া উচিত ছিল।”

গত ২৫ এপ্রিল সাংসদ হিসেবে শপথ নেন জাহিদুর রহমান আর তার ঠিক দুই দিন পর জাহিদকে দল থেকে বহিষ্কার করে বিএনপি। কিন্তু দুই দিন পরেই চার সাংসদের বেলায় ভিন্ন ভিন্ন সিদ্ধান্ত নেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কিন্তু চার সাংসদের বেলায় সংসদে যাওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিলেও মির্জা ফখরুল এই সিদ্ধান্তের বাইরে থাকেন।

বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে পরোক্ষভাবে জড়িত একজন শিক্ষাবিদ বলেন, সংসদে যাওয়ার ব্যাপারে বিএনপি পানি ঘোলা করে তা খেয়েছে এটা ঠিক কিন্তূ সিদ্ধান্ত একেকজনের ক্ষেত্রে একেক রকম হওয়াটা ঠিক হয়নি এটি আসলেই বিভ্রান্তিকর।

এদিকে বিএনপির মহাসচীব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্বাধীনতা ৭১ টিভিকে এই সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বলেন, এটি দলীয় আমাদের একটি দলীয় কৌশল। আমাদের এই কৌশল ঠিক নাকি ঠিক নয়, তা সময়ই বলে দিবে।