বাড়ি চিটাগাং গর্ত ও খানাখন্দের কারণে বাড়ছে যানজট; আদায় বাড়তি ভাড়া

গর্ত ও খানাখন্দের কারণে বাড়ছে যানজট; আদায় বাড়তি ভাড়া

82

টানা বর্ষণে চট্টগ্রাম মহানগরের অধিকাংশ প্রধান সড়কগুলো বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। প্রায় ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে আছে নগরীর অভ্যন্তরীন সড়ক-উপসড়কগুলোও। ছোট-বড় গর্ত ও খানাখন্দ সড়কগুলোকে তৈরী করেছে মৃত্যুকুপে। যার ফলে বিগ্ন হচ্ছে স্বাভাবিক যান চলাচল। নাগরিক দুর্ভোগ উঠেছে চরমে। বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা মোকাবেলা চট্টলাবাসীর যেন নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার। এর মধ্যে খানাখন্দ রাস্তায় চলাচল দুর্ভোগের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

পানি সরবরাহ সঞ্চালন লাইনের জন্য ওয়াসার খোঁড়াখুঁড়ি ছাড়াও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (চউক) বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণ মোড়ে জলাবদ্ধতা নিরসন ও পানি নিষ্কাশনের জন্য পুরনো ব্রিজ ভেঙে উঁচু করা হচ্ছে। আর এসব কাজ করতে গিয়ে কোথাও সড়কের একপাশ পুরো বন্ধ, আবার কোথাও পুরো সড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বৃষ্টির মৌসুমে এসব কাজ শুরু করে শেষ করতে না পারায়, টানা বৃষ্টি আর যানজটে নগরবাসী ও কর্মজীবী মানুষের দুর্ভোগ আর ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে।

নগরীর চন্দনপুরা ফায়ার সার্ভিস অফিস সংলগ্ন সড়ক, হালিশহর নয়াবাজার ঢাকা-চট্টগ্রাম ট্রাংক রোড় এবং আগ্রাবাদ, চৌমুহনী, দেওয়ানহাটে অসংখ্য গর্ত আর খানাখন্দের কারণে বাড়ছে তীব্র যানজট। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে গণপরিবহনগুলোতে চলছে বাড়তি ভাড়া আদায়।

এসময় যাত্রীরা জানান, ১০টাকার ভাড়া ১৫টাকায় ২০টাকার ভাড়া ৪০টাকা আদায় করছে বাস চালকরা। ব্যতিক্রম নয়, সিএনজি চালকরাও। যাত্রীদের থেকে আদায় করছেন দ্বিগুন ভাড়া। এতে অসন্তোষ প্রকাশ করেন যাত্রীসাধারণ।

নির্ধারিত সময় নিয়ে বের হলেও গন্তবে পৌছাতে পোহাতে হচ্ছে নানা দূর্ভোগ। বাসে তিল ঠাই পরিমান জায়গা না থাকলে ও বাসে উঠার প্রাণপণ চেষ্টায় মেতেছে মানুষ। কিন্তু বাসে উঠাও যেন একটা প্রতিযোগীতার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে নগরীর প্রতিটি গুরুত্বপুর্ণ সড়কের মোড় গুলোতে।

সন্ধ্যা ৬ টার দিকে নগরীর জিইসি, ২নং গেইট, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, আগ্রাবাদ, চৌমুহুনি দেওয়ানহাট এলাকায় দেখা যায় জনদূর্ভোগের এই দৃশ্য।

অন্যদিকে, বাস চালকরা বলেন বৃষ্টির দিনে গাড়ী চালাতে নানা সমস্যা ও রাস্তার বেহাল দশার কারণে গাড়িগুলো বারবার’ই বিকল হয়। যা সারাতে যাত্রীদের থেকে নিতে হচ্ছে দ্বিগুণ ভাড়া।

অসহনীয় ট্রাফিক জ্যামের পাশাপাশি রাস্তার বেহাল দশার কারনে যানজট কমাতে হিমশিম খাচ্ছে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা ।

এ ব্যাপারে ট্রাফিক পুুিলশের সাজেন্ট নাইম স্বাধীনতা ৭১  টিভিকে বলেন, মাত্রাতিরিক্ত রিকসা, ভাঙ্গা রাস্তা, ও ওয়াসার রাস্তা খোড়াখুড়ির কারণে যানযট বৃদ্ধি পেয়েছে।