বাড়ি বিনোদন একটুও ব্যথা পাননি নিপুণ

একটুও ব্যথা পাননি নিপুণ

17

বিনোদন অঙ্গনের সব মাধ্যমের শিল্পীই আস্তেধীরে করোনাভাইরাসের টিকা নিচ্ছেন। এবার চলচ্চিত্র তারকা নিপুণকে টিকা নিতে দেখা গেল। এটি তাঁর নেওয়া প্রথম ডোজ। দ্বিতীয় ডোজ নেবেন আগামী মে মাসে। সোমবার তাঁর ফেসবুক ওয়ালে প্রথম ডোজের টিকা নেওয়ার ছবি প্রকাশ করেছেন এই নায়িকা। জানালেন, কয়েক দিন আগে রাজধানীর মহাখালীর একটি হাসপাতালে গিয়ে তাঁর মাসহ টিকা নিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে নিপুণ বলেন, ‘কয়েক দিন আগেই মাসহ টিকা নিয়েছি। একটু দেরি করে ফেসবুকে ছবি প্রকাশ করেছি।’ টিকা নেওয়ার পরিবেশ দেখে খুব ভালো লেগেছে বলে জানালেন এই অভিনেত্রী। বললেন, ‘কোনো ভিড় নেই। যাঁরা আবেদন করে এসেছিলেন, তাঁরা শৃঙ্খলা মেনে লাইন ধরে টিকা নিয়েছেন।’

টিকা নেওয়ার সময় ভয় পেয়েছিলেন কি না, জানতে চাইলে নিপুণ বলেন, ‘না না, ভয় পাইনি। টিকার নেওয়ার সময় তো বুঝতেই পারলাম না। একটুও ব্যথা লাগেনি।’ টিকা নেওয়ার পর অনেকেরই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে শরীরব্যথা কিংবা জ্বর হয়েছে। কিন্তু নিপুণ ও তাঁর মায়ের কোনো সমস্যা হয়নি। নিপুণ বলেন, ‘আমরা ভাগ্যবান আমাদের কোনো সমস্যা হয়নি। শুনেছি টিকা নেওয়ার পর অনেকেরই শরীরব্যথা, জ্বর হয়েছে। মা আগে থেকেই একটু অসুস্থ। তাই মাকে নিয়ে একটু টেনশনে ছিলাম। কিন্তু এখন পর্যন্ত কিছুই হয়নি।’

টিকা নেওয়ার পর নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বেড়েছে নিপুণের। অনেক উন্নত দেশ এখনো টিকা দেওয়া শুরু করতে পারেনি। সেই ক্ষেত্রে বাংলাদেশের মানুষ আগেভাগেই টিকা নেওয়ার সুযোগ পাওয়াতে দেশের অর্জন মনে করছেন এই নায়িকা। তিনি বলেন, ‘থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ বেশ কিছু উন্নত দেশ এখনো টিকা প্রদান শুরু করেনি। আমরা তাদের থেকে অর্থনৈতিকভাব পিছিয়ে থেকেও টিকাতে এগিয়ে গেছি। এটি বাংলাদেশের অর্জন।’

অনেক দিন পরে সিনেমায় অভিনয় করলেন নিপুণ। সাইদুল রানার ‘বীরত্ব’ নামের এই ছবির একটি গানের শুটিং বাকি আছে। নিপুণ বললেন, ‘অনেক দিন থেকেই সিনেমার অবস্থা ভালো যাচ্ছিল না। মাঝে নিজের ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। গল্প পছন্দ হওয়ায় মাঝে সময় বের করে এই সিনেমার কাজ করলাম। এখন থেকে ভালো গল্প পেলে নিয়মিত সিনেমাতে কাজ করব।’ নিপুণ জানালেন, ছবির ডাবিং শেষ হয়েছে। এখন রং বিন্যাসের কাজ চলছে। করোনা আরও কমলে গানের শুটিং শেষ করা হবে।

টিউলিপ নেইলস অ্যান্ড স্পা নামে পারলার ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত নিপুণ। করোনাভাইরাসের প্রকোপে প্রায় সাত মাস বন্ধ ছিল প্রতিষ্ঠানটি। নিপুণ বলেন, ‘কয়েক মাস আগে প্রতিষ্ঠানটি খুলেছি। হয়তো আগের মতো ব্যবসা হচ্ছে না। তবে খারাপও না। পরিস্থিতি অনুযায়ী ভালোই হচ্ছে ব্যবসা।’