বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০২:১৭ অপরাহ্ন
                                           

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কেন বিক্ষুব্ধ হলো

জুজুর ভয়’—এই বাগধারাটি কে না শুনেছে। যার অর্থ হচ্ছে কল্পিত ভয়। মূলত জুজু হচ্ছে একটি কল্পিত প্রাণী। শিশুদের মনে ভয় সঞ্চার করতে এই কল্পিত প্রাণীর ভয় দেখানো হয়। ইংরেজিতেও এ ধরনের একটি শব্দবন্ধ আছে, বোগাস বু (bogus boo)। এটিও জুজুর মতো একটি কল্পিত প্রাণী। কোথাও পড়েছি, কোনো বিপজ্জনক জায়গায় যেতে মায়েদের নিষেধ না শুনলে শিশুসন্তানদের তখন এই বোগাস বু-এর ভয় দেখান ইংল্যান্ডের মায়েরা। আসলে সব দেশে সমাজে এ ধরনের একটি ব্যাপার থাকে।

শিশুদের না হয় ‘জুজুর ভয়’ দেখানো যায়, তরুণদের ক্ষেত্রে কি তা সম্ভব? বরং তরুণদের শিশু মনে করে এমন ভয় দেখানো নিশ্চয়ই হাস্যকরই ঠেকবে। এমন হাস্যকর কাণ্ডই ঘটিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তার আগে সর্বস্তরের পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলে নিই, বিশ্ববিদ্যালয়টিতে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ঘটে যাওয়া উত্তেজনাকর পরিস্থিতি।
শিশুদের না হয় ‘জুজুর ভয়’ দেখানো যায়, তরুণদের ক্ষেত্রে কি তা সম্ভব? বরং তরুণদের শিশু মনে করে এমন ভয় দেখানো নিশ্চয়ই হাস্যকরই ঠেকবে। এমন হাস্যকর কাণ্ডই ঘটিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তার আগে সর্বস্তরের পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলে নিই, বিশ্ববিদ্যালয়টিতে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ঘটে যাওয়া উত্তেজনাকর পরিস্থিতি।

বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে শাটল ট্রেনের ছাদে চড়ে যাওয়ার সময় হেলে পড়া একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ১৯ শিক্ষার্থী আহত হন। চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে ছিটকে পড়েন তাঁরা। কারও মাথা, কারো মুখ থেঁতলে যায়। রক্তে গা ভেসে যাওয়া শিক্ষার্থীদের সেসব ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

আহত শিক্ষার্থীদের ১৬ জনকে ঘটনার পরপরই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এঁদের মধ্যে তিনজন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) আছেন। রক্তাক্ত শিক্ষার্থীদের বীভৎস ছবি দেখে এ খবর ছড়িয়ে পড়ে যে, একজন কি দুজন মারা গেছেন। তখন ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বাসভবনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেন। অবশ্য উপাচার্য শিরীণ আখতার এ বাসভবনে থাকেন না।

রেহাই পায়নি শিক্ষক ক্লাব, পুলিশ বক্স, পরিবহন দপ্তরও। পরিবহন দপ্তরে গিয়ে অন্তত ২৪টি বাস, ১টি মোটরসাইকেল, ১৫টি প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস ভাঙচুর করেন তাঁরা। এই ভাঙচুরের ছবি দেখলে বোঝা যায়, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কতটা সহিংস হয়ে উঠেছে।
বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে শাটল ট্রেনের ছাদে চড়ে যাওয়ার সময় হেলে পড়া একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ১৯ শিক্ষার্থী আহত হন। চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে ছিটকে পড়েন তাঁরা। কারও মাথা, কারো মুখ থেঁতলে যায়। রক্তে গা ভেসে যাওয়া শিক্ষার্থীদের সেসব ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

আহত শিক্ষার্থীদের ১৬ জনকে ঘটনার পরপরই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এঁদের মধ্যে তিনজন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) আছেন। রক্তাক্ত শিক্ষার্থীদের বীভৎস ছবি দেখে এ খবর ছড়িয়ে পড়ে যে, একজন কি দুজন মারা গেছেন। তখন ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বাসভবনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেন। অবশ্য উপাচার্য শিরীণ আখতার এ বাসভবনে থাকেন না।

রেহাই পায়নি শিক্ষক ক্লাব, পুলিশ বক্স, পরিবহন দপ্তরও। পরিবহন দপ্তরে গিয়ে অন্তত ২৪টি বাস, ১টি মোটরসাইকেল, ১৫টি প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস ভাঙচুর করেন তাঁরা। এই ভাঙচুরের ছবি দেখলে বোঝা যায়, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কতটা সহিংস হয়ে উঠেছিল।

শাটল ট্রেনের ছাদ থেকে আহত শিক্ষার্থীদের ধরে নামাচ্ছেন অন্যরা
শাটল ট্রেনের ছাদ থেকে আহত শিক্ষার্থীদের ধরে নামাচ্ছেন অন্যরা
সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের নানা উপগ্রুপের নেতা-কর্মীরা এ বিক্ষোভ ও ভাঙচুরে যুক্ত ছিলেন। তাঁদের কাউকে কাউকে নেতৃত্বের ভূমিকাতেও দেখা গেছে। তবে সেই বিক্ষোভের মধ্যে জামাত-শিবির ঢুকে গেছে বলে পরবর্তীতে এ বিক্ষোভকে ভিন্নদিকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের একটি পক্ষ। উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে চলা বিক্ষোভ যখন শিবিরবিরোধী বিক্ষোভে পরিণত হয়, সেখান থেকে স্বাভাবিকভাবেই সাধারণ শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে আসেন। ফলে রাতেই ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ পর্বের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের এ বিক্ষোভের ইতি ঘটে।

এখন প্রশ্ন হলো, শিক্ষার্থীরা এভাবে বিক্ষুব্ধ হলো কেন? শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, শাটল ট্রেনে ভয়াবহ সিট সংকট। ভেতরে গাদাগাদি করে বসে, দাঁড়িয়ে থেকেও কোনোভাবে জায়গা সংকুলান হয় না। বগি বাড়ানোর জন্য বারবার দাবি জানিয়েও কাজ হয়নি। বরং ডেমু ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। শাটল ট্রেন শিক্ষার্থীদের জন্য হলেও স্থানীয়রাও সেটিতে করে যাতায়াত করছেন। এ ছাড়া নিরাপত্তাহীনতার কারণে বখাটে যুবকদের দ্বারা কয়েকবার ছাত্রীদের যৌন হেনস্তা এমনকি ধর্ষণচেষ্টার ঘটনাও ঘটেছে। দিন-রাতে প্রচণ্ড গরমে ভেতরে টেকা যায় না। হাজার হাজার শিক্ষার্থীতে ঠাসা থাকে ট্রেন, অথচ বগিগুলোতে কোনো ফ্যান নেই। এমন পরিস্থিতিতে ছাদে উঠতে বাধ্য হন শিক্ষার্থীরা। আগে এক সময় সেটি দিনের বেলায় ঘটলেও, এখন সন্ধ্যা বা রাতের বেলায়ও ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের ছাদে উঠেন তাঁরা।
ভাগাড়ের’ মতো পরিবহন, এমন কেন হবে? একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রতি এতটা অবহেলা কোনোভাবেই মানা যায় না। কোনো সভ্য দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর তুলনা করলে লজ্জাই লাগে বলতে গেলে।

দুঃখজনক হচ্ছে, ছাত্রলীগের একাংশের মতো বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও সেই বিক্ষোভের ভেতরে বিএনপি-জামায়াতের নামে জুজুর ভয় ঢুকিয়ে দিয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর নূরুল আজিম সিকদার বলেছেন, শাটল ট্রেন দুর্ঘটনাকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে জামায়াত শিবির ও বিএনপির প্ররোচনা ছিল। বিক্ষোভে তাদের ‘অ্যাজেন্ডা’ ঢুকে পড়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের পর গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টায় ক্যাম্পাসের জিরো পয়েন্ট এলাকা পরিদর্শনে এসে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। (প্রথম আলো অনলাইন, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩)।
শুক্রবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের ডাকা সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সামনে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একটি গোষ্ঠী বিশ্ববিদ্যালয়কে অচল করতে এই নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শিরীণ আখতার জানান, ভাঙচুরের ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা করা হয়েছে, যেখানে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া আরও কয়েকটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

তার মানে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিছু শিক্ষার্থীর ওপর চরমভাবে ভোগান্তি নেমে আসবে, মামলা-জেল-জুলুমের শিকারও হতে পারেন তাঁরা। শিক্ষাজীবন তো বিপর্যস্ত হবেই। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যদি সত্যিকার অর্থ শিক্ষার্থীবান্ধব হতো, তাঁদের দীর্ঘদিনের দাবির প্রতি আন্তরিক হতো, তাহলে কি এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটত? শিক্ষার্থীরাও কি বিক্ষুব্ধ হয়ে এই ভাঙচুর চালাতেন? তাঁদের বিরুদ্ধেও কি এতগুলো মামলা করতে হতো?
ইতিহাসের দিকে তাকালে, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আন্দোলনগুলো সাক্ষ্য দেয়, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, সরকারি প্রশাসন ও পুলিশের আচরণের বিরুদ্ধে এর চেয়েও সহিংস আচরণ করতে বাধ্য হয়েছে শিক্ষার্থীরা। সেসবের উদাহরণ দিয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের এ সহিংসতাকে ন্যায্যতা দেওয়া উচিত হবে না। এভাবে রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতি কোনোভাবে মেনে নেওয়া যায় না।

কিন্তু অন্যায়, অবিচার, অবহেলার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যখন একবার ফুঁসে ওঠে তা কোনোভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না, সেই আগুন রাজনৈতিক ক্ষমতাকেও টলিয়ে দেয়। এটি নিশ্চয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তাদের জেনে না থাকার কথা না। অবশ্যই এমন অন্যায় কর্মকাণ্ড ও অপরাধের জন্য দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়াটাই স্বাভাবিক। অবশ্যই তদন্ত করে দেখতে হবে, এই ভাঙচুর–অগ্নিসংযোগে বহিরাগত বা অন্য কোনো পক্ষ ছিল কী না।

তবে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর খড়গহস্ত না হয়ে তাঁদের ন্যায্য দাবিগুলো মেনে নেওয়াটাই বরং যৌক্তিক ও বাস্তবসম্মত হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের জন্য। তাদের বুঝতে হবে, জুজুর ভয় দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বেশি দিন দমিয়ে রাখা যায় না।



ফেইসবুক পেইজ