বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০২:৪৮ অপরাহ্ন
                                           

মানিকগঞ্জে যানবাহনে তল্লাশি, বাড়ি থেকে বিএনপির ৭ নেতা-কর্মী আটক

মানিকগঞ্জে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক ও মানিকগঞ্জ-হেমায়েতপুর আঞ্চলিক মহাসড়কে তল্লাশিচৌকি বসিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। আজ শুক্রবার সকাল থেকে তল্লাশি চালাতে দেখা গেছে। এদিকে বাড়িতে ও বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের সাত নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভাষ্য, সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে ঢাকায় ২৮ অক্টোবর বিএনপির মহাসমাবেশে যোগ দিতে বাধা দিতে এবং হয়রানি করতে তাঁদের আটক করা হয়েছে।

আটক নেতা-কর্মীরা হলেন—মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার ফকুরহাটি ইউনিয়ন বিএনপির সহসভাপতি তমিজ উদ্দিন, উপজেলার হরগজ ইউনিয়ন বিএনপির ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, ফকুরহাটি ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি বাদশা মিয়া, সিঙ্গাইর উপজেলা বিএনপির প্রবাসীকল্যাণ–বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, সদর উপজেলা শ্রমিক দলের সভাপতি জিয়াউর রহমান, ফকুরহাটি ইউনিয়ন যুবদলের কর্মী মোতালেব হোসেন, ফকুরহাটি ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রাইসুল ইসলাম।
সরেজমিনে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তল্লাশিচৌকিতে ঢাকাগামী বিভিন্ন যানবাহনে তল্লাশি চালানোর সময় মানিকগঞ্জ সদর থানার পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সদস্যদের দেখা গেছে। আজ সকাল ৯টার দিকেও মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তল্লাশিচৌকিতে ঢাকাগামী বিভিন্ন যানবাহনে পুলিশের তল্লাশি চালাতে দেখা যায়। এ সময় বাসের যাত্রীদের বিভিন্ন প্রশ্নের মুখোমুখি করা হয়।

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তল্লাশির দায়িত্বে থাকা সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শাহ আলম বলেছেন, সন্দেহজনক হলে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অন্যথায় কাউকে হয়রানি করা হচ্ছে না।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঢাকার অন্যতম প্রবেশমুখ মানিকগঞ্জ-হেমায়েতপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের ধল্লা এলাকাতেও তল্লাশিচৌকি বসিয়েছে পুলিশ। সেখানেও বিভিন্ন যানবাহনে তল্লাশি চালানোর সময় যাত্রীদের জেরা করা হচ্ছে।

সিঙ্গাইর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবিদুর রহমান খান জানান, ধল্লা পুলিশ ফাঁড়ির সামনে তল্লাশিচৌকি থাকলেও সেখানে পুলিশের তৎপরতা খুব একটা চোখে পড়েনি। তবে ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ তল্লাশিচৌকিতে তৎপরতা চালিয়ে আসছে। আজ ভোর থেকে সেখানে তল্লাশি আরও জোরদার করা হয়েছে।

তবে ধল্লা পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রফিকুল ইসলাম বলেছেন, এ ফাঁড়ির সামনে প্রতিনিয়ত তল্লাশি করা হয়। কোনো দলের কর্মসূচি উপলক্ষে এই তল্লাশি করা হচ্ছে না।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এস এ জিন্নাহ কবির বলেছেন, ঢাকায় দলের মহাসমাবেশে নেতা-কর্মীদের অংশগ্রহণ বাধাগ্রস্ত করতেই সরকারের নির্দেশে জেলার বিভিন্ন স্থানে তল্লাশিচৌকি বসিয়ে নেতা-কর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে। বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে নেতা-কর্মীদের আটক করা হচ্ছে। কিন্তু এর পরও ঢাকার মহাসমাবেশে মানিকগঞ্জ থেকে বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী অংশ নেবেন। ইতিমধ্যে বিভিন্নভাবে অনেক নেতা-কর্মী ঢাকায় পৌঁছেছেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুর রউফ সরকার বলেন, ‘কোনো দলের কর্মসূচি উপলক্ষে নয়, মহাসড়কে চেকপোস্ট বসানো আমাদের নিয়মিত কার্যক্রমেরই অংশ। এ ছাড়া সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এবং মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এ ছাড়া কাউকে হয়রানি বা আটকের বিষয়টি সঠিক নয়।’



ফেইসবুক পেইজ