বাড়ি অদ্ভুতুড়ে গভীর রাতে কবর খুঁড়ে চুরি করত কঙ্কাল!

গভীর রাতে কবর খুঁড়ে চুরি করত কঙ্কাল!

94

দিনের বেলায় ফিড মিলে চাকরি করত আর সন্ধ্যার পরই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠত শরিফুল ইসলাম মুসা। দা, কোদাল আর টুকরি নিয়ে কবর খুঁড়তে বেরিয়ে পড়ত। রাতের অন্ধকারে কবরে নেমে মৃত মানুষের কঙ্কাল চুরি করা তার নেশায় পরিণত হয়। প্রতিটি কঙ্কালের জন্য মুসা পেত ১ হাজার টাকা। গত ক’দিনে শ্রীপুর উপজেলার নিজমাওনা এলাকায় ১৫-২০টি কঙ্কাল চুরি করে মুসা। কঙ্কাল চুরি বৃদ্ধি পাওয়ায় স্থানীয়রা কবরস্থান পাহারা দিতে শুরু করেন। কঙ্কাল চুরি করতে গিয়ে অবশেষে জনতার হাতে ধরা পড়ে মুসা। জামালপুর সদরের পিয়ারপুর গ্রামের আবদুর রহমানের ছেলে শরিফুল ইসলাম মুসা বিভিন্ন এলাকায় ভাড়া থেকে কঙ্কাল চুরি করত। কোথাও বেশি দিন থাকা হতো না। তার রয়েছে সংঘবদ্ধ একটি চক্র।

সর্বশেষ নিজমাওনা গ্রামে নিউ গোল্ডেন এগ্রো ফার্মস লিমিটেড নামে একটি কারখানায় নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে চাকরি নেয় সে। দিনের বেলায় চাকরি করত আর রাতে পুরো এলাকায় কবরস্থান খুঁজে বের করে খুঁড়ে কঙ্কাল সংগ্রহ করে ওই কারখানার ভেতরে নিয়ে যেত। নিজমাওনা গ্রামের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী কামরুল হাসান কাজল জানান, তার বাবার কবর থেকে কঙ্কাল চুরি করে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল মুসা। স্থানীয় লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এর আগে মাওনা ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে অন্তত অর্ধশত কঙ্কাল চুরি করে মুসা। 

পুলিশকে মুসা জানায়, প্রতিটি মানুষের কঙ্কালের জন্য তাকে  দেওয়া হতো এক হাজার টাকা। সে জানায়, ভাগিনা সোহেল তার সঙ্গে জড়িত। সোহেলের সহযোগিতায় সে এ কঙ্কাল চুরির সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। শ্রীপুর থানার ওসি মো. জাবেদুল ইসলাম বলেন, তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হয়েছে।