বাড়ি খেলাধুলা আফিফ-মোসাদ্দেক ঝড়ে বাংলাদেশের অবিশ্বস্য জয়

আফিফ-মোসাদ্দেক ঝড়ে বাংলাদেশের অবিশ্বস্য জয়

72

দশম ওভারে ৬ষ্ঠ উইকেটের পতন। স্কোরবোর্ডে তখন সংগ্রহ ৬০ রান। জয়ের জন্য দরকার আরও ৮৫ রান। খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে থাকা বাংলাদেশকে সাহস দিলেন তরুণ আফিফ হোসেন। সঙ্গে ছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন। শেষ পর্যন্ত ৮২ রানে এই জুটি থামলেও বিদায়ের আগে জয়ের ভীত গড়ে দেন আফিফ। ৫২ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস খেলে দলকে জয় এনে দিয়েছেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান।

বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানরা সব হতাশ করে বিদায় নিয়েছিল। সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহদের মত ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা যখন দারুণ হতাশার জন্ম দিল বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকদের হৃদয়ে, তখন সেটাকে নিমিষে দুর করে দিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। বয়স মাত্র ২০ ছুঁই ছুঁই। মোসাদ্দেক হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে এই বয়সে দলকে নিশ্চিত হার থেকে রক্ষা করলেন এই তরুণ।

আফিফ হোসেন ধ্রুবর সঙ্গে ৮২ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশকে অবিশ্বাস এক জয় এনে দিলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও। মাত্র ২৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশকে জয় এনে দিয়েছেন ৩ উইকেটের ব্যবধানে।

রাজধানীর মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে টস জিতে বোলিং নেয় বাংলাদেশ। ফলে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্রুত ৫ উইকেট হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। শেষে বার্লের দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরিতে এগিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। তিনি ৩২ বলে ৫৭ রান করে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে শুরুতে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে প্রথম উইকেট তুলে নেন তাইজুল। ৭ম ওভারে ক্রেইগ এরভিনকে মাত্র ১১ রানের মাথায় সাজঘরে ফিরিয়ে এই ইনিংসের ব্যক্তিগত প্রথম উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান। ৬ ওভার ৩ বলের মাথায় মুস্তাফিজের বলে ক্যাচ তুলে দেন মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে।

৮ম ওভারে হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে ফেরান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। ৭ ওভার ৫ বলে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ তুলে দেন মাসাকাদজা। ইনিংসের ৯ম ওভারের প্রথম বলে শন উইলিয়ামসের উইকেট তুলে নেন মোসাদ্দেক হোসেন। সবশেষ ইনিংসের ১০ম ওভারে মাত্র ১ রানে সাকিবের থ্রোতে টিমিসেন মারুমাকে রান আউট করেন মুস্তাফিজ।

এদিকে বৃষ্টির কারণে ভেজা মাঠ প্রস্তুত হওয়ার পর টস হয় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর। টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। বৃষ্টির কারণে ১৮ ওভারে নামে উদ্বোধনী ম্যাচটি।