বাড়ি অডিও ভিজ্যুয়াল সকলের প্রিয় ইরফান খানের অজানা কিছু কথা।

সকলের প্রিয় ইরফান খানের অজানা কিছু কথা।

192

মানুষের কত রকম স্বপ্নই থাকে। তার কিছু পূরণ হয়, কিছু থেকে যায় আড়ালেই। তার ভিড়ে কিছু স্বপ্ন থাকে পাগলাটে। তেমন এক স্বপ্ন ছিলো সদ্য প্রয়াত অভিনেতা ইরফান খানের। তিনি তার মায়ের হাতে স্যুটকেস ভর্তি টাকা তুলে দেয়ার স্বপ্ন দেখতেন। সেই স্বপ্ন তার পূরণ হয়নি।

এমনি এক আশ্চর্য মানুষ ছিলেন ইরফান। যার অনেক কিছুই তার ভক্তদের কাছে অজানা। জেনে নেয়া যাক অজানা সেই ইরফানকে-

ইরফান খানের আসল নাম সাহাবজাদে ইরফান আলি খান। ইরফান নিজের লম্বা নামটি শুনতে ভালোবাসতেন না। সেই কারণে নামটি ছোট করে ইরফান করে নেন। ২০১২-তে নামের মধ্যে তিনি একটি অতিরিক্ত ‘R’ যোগ করেন কারণ তার এই শব্দটি শুনতে ভালো লাগত।

ইরফান ছিলেন দুর্দান্ত ক্রিকেটার। সি কে নায়ুডু টুনার্মেন্টে খেলার সুযোগও পান তিনি। কিন্তু খেলতে পারেননি টাকার অভাবে। এ নিয়ে আক্ষেপ ছিলো তার।

মুম্বাইতে তার ক্যারিয়ার শুরু হয় এসি মেকানিক হিসেবে। লোকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসি মেরামত করতেন তিনি। একটি গল্প আছে যে চাকরির প্রথম দিকে তিনি নাকি রাজেশ খান্নার বাড়িতে যান এসি সারাতে।

ইরফান সিনেমা দিয়ে দুনিয়াজোড়া খ্যাতি পেয়েছেন। তবে তার অভিনয়ের ক্যারিয়ার শুরু হয় টেলিভিশনে। ‘চানক্য’, ‘ভারত এক খোঁজ’, ‘সারা জাহাঁ হামারা, ‘বানেগি আপনি বাত’, ‘চন্দ্রকান্তা’ এবং ‘স্টার বেস্ট সেলার্সে’র মতো ধারাবাহিকে তিনি অভিনয় করেন।

৬ ফুট এক ইঞ্চি লম্বা ইরফান খানকে গ্যাভিন ও’কনার পরিচালিত ‘দ্য ওয়ারিয়র’ নামের একটি ছবি আন্তর্জাতিক বাজারে বিখ্যাত করে তোলে।

সাধারণত হলিউডের কোনো ছবির অফার বলিউডের অভিনেতারা ফিরিয়ে দেন না। কিন্তু ক্রিস্টোফার নোলানের মতো পরিচালককে ফিরিয়েছিলেন ইরফান। তার ‘ইন্টারস্টেলার’ ছবিটিতে একটি মোটামুটি রোলও ইরফান ফিরিয়েছিলেন কারণ সে সময়ে তার ‘লাঞ্চ বক্স’ এবং ‘ডি ডে’ ছবিতে অভিনয়ের কথা ছিল। তিনি আরও ফিরিয়েছেন হলিউডের কিছু ছবি। যার কারণে সুযোগ হারিয়েছেন লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিওসহ অনেক নন্দিত তারকাদের সাথে অভিনয়ের।

ইরফান একমাত্র বলিউডি অভিনেতা যিনি দু’টো অস্কার পুরস্কার জেতা ছবির অংশ। ২০০৮-এ ‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’ এবং ২০১২-তে ‘লাইফ অফ পাই’।

ইরফানের অভিনয়ে আপ্লুত হয়েছিলেন জুলিয়া রবার্টসের মতো অভিনেত্রীও। অস্কারের এক অনুষ্ঠান শেষে জুলিয়া তাকে আলাদা করে ডেকে নিয়ে গিয়ে মীরা নায়ারের ‘নেমসেকে’ তার অভিনয়ের সুখ্যাতি করেছিলেন। ২০১১ সালে ভারতীয় সিনেমায় তার অবদানের জন্য পদ্মশ্রী পান ইরফান।

লস এঞ্জেলস এয়ারপোর্টে ইরফান খানকে দু’বার আটকানো হয়েছিল। কারণ তার নামের সঙ্গে একজন সন্ত্রাসীর নামের মিল ছিল।